সপ্তাহে কমপক্ষে ৩-৫ দিন ১ ঘন্টা হাটুন/দৌড়ান, প্রতিদিন কমপক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

ফিরে দাঁড়ানোর গল্প

Last Updated on June 23, 2017 by Motu Group Team

বিয়ের আগে যদিও ব্যায়াম করতাম টুকটাক।কিন্তু বিয়ের পর একদম আর হয়নি বেশ কিছু কারনে।
বেশ কিছু কারনে মন খারাপ থাকত,তার উপর সব ছেড়ে ভিন দেশে একদম একা, আর নতুন।
তখন অবসর থাকলেও ব্যায়াম করতে ইচ্ছা করত না।
ভাল লাগত না কিছুই। ডিপ্রেশনে ভুগছিলাম।
এই ডিপ্রেশন বেড়ে মারাত্মক আকার হয় আমার মেয়ের জন্মের সময় ও তার পরের কয়েক মাস।
কোন যত্ন তো পাইনি উলটা প্রতিদিন ৪ জন মানুষের মত রান্না আরো ২জন বয়স্ক অসুস্থ মানুষের সেবা করতে হইছে একা আমেরিকায়।
এক সময় বদ্ধঘরে থেকে থেকে পাগল হয়ে গেছিলাম।
উফ কি ভয়নকর সময়।এর মধ্যে তরতর করে বেড়ে যাচ্ছিল নিজের ওজন।।শরীরের মুখে বয়সের ছাপ। নাম মাত্র সম্পক ছিল সবার সাথেই.. কিছু করতে ভাল লাগত না..

কোন একদিন কি মনে হয়ে ঝাড়া দিয়ে উঠলাম ঠিক আমার মেয়ের ৪.৫ মাসের মাথায় ঠিক করলাম সবার আগে নিজেকে ভালবাসব।নিজের কাছে নিজে প্রিয় হব।তারপর অন্য কেউ।

আক্ষরিক অর্থে সব নেগেটিভ মানুষদের বের করে দিলাম জীবন থেকে।যাদের পারিনি তাদের সাথে গুনে গুনে কথা।
ফিজিক্যাল এবিউসের চেয়ে ভয়নকর হল মেন্টাল এবিউস।কথার আঘাত ভয়নকর।
নিজেকে বদলাব।সব বদলে যাবে।
শুরু করলাম হাটা দিয়ে, এরপর অন্য ব্যায়াম।
এই ব্যায়াম আমাকে নতুন জীবন দিয়েছে।বাচতে শিখিয়েছে।ব্যায়াম আমার বেচে থাকার মন্ত্র, অস্ত্র সব।আমার প্রাথনা হল ব্যায়াম। আমার বন্ধু হল ব্যায়াম।
মেয়ের ৮ মাসের মাথায় ঝরিয়ে ফেললাম বাড়তি ওজন।

এরপর শুরু করলাম ওয়েটলিফটিং।
বাঙালি মেয়েরা নাকি কুড়িতেই বুড়ি।এই আমি সন্তান হবার পর, ৩০ এর পর সাতার শিখেছি, ওয়েট লিফট শিখেছি। পাহাড়ে উঠেছি।
আমি নিজেকে সু্ন্দর মনে করি কারন আলহামদুলিল্লাহ আমি সুখী।সব সুখী মানুষই সুন্দর।
আলহামদুলিল্লাহ আমার বর খুব ভাল মানুষ। আমার ব্যায়াম সাপোর্ট করেন।আমি জিমে গেলে বাপ বেটি সময় কাটায়। আমি রেগুলার ১ থেকে দেড় ঘন্টা ব্যায়াম করি।

জীবনে ভাল থাকতে হলে,অন্যের জন্য কিছু করতে হলে সবার আগে নিজে সুস্থ থাকতে হবে।নিজের সুস্থতার জন্য ব্যায়াম খুব দরকার। ব্যায়ামে ক্যালরীর সাথে নেগেটিভ আক্রশ বেরিয়ে যায়।
প্রতিদিন এট লিস্ট ৩০ মিনিট হলেও ব্যায়াম করুন।নিজেকে ভালবাসুন।
এই মটু গ্রুপ এ আমি যুক্ত হই ২০১৬ সালের এপ্রিল /মে মাসে এক বান্ধবির মাধ্যমে।
এই মটু গ্রুপ আমাকে খুব মোটিভেট করে।আমার ব্যায়ামকে দারুন এপ্রিশিয়েট করে এই গ্রুপের আপু ভাইয়ারা। কোন পোস্ট দিলেই খুব ভাল রেস্পন্স পাই।।

আমার মত এক সময়ের ডিপ্রেশনের রুগী এখন যদি কারোর এক মুহুরতের জন্যও অনুপ্রেরণা হয় ব্যায়ামের বা জীবনের এটা আমার জন্য অনেক সম্মানের।
যদি কোন দিন আলসেমি লাগে তাইলে এই গ্রুপ এর জন্যই যেন ব্যায়াম করে পোস্ট দেই।
সব আপু ভাইয়ারা তাদের আপডেট জানান। দেখতেও খুব ভাল লাগে।গ্রুপ এগিয়ে যাক বহুদুর। সবাই সুস্থ থাকুন, ব্যায়াম করুন। 🙂
১ম ছবি ফেব্রুয়ারি ৫ ২০১৫ সাল আমার মেয়ের জন্মের ২য় দিন ওজন ৭০ কেজি
২য় ছবি ৩রা মে ২০১৭ সাল ওজন ৫৯ কেজি।হাইট ৫.৫

আমাদের উদ্দেশ্য টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে সঠিক তথ্য দিয়ে সবাইকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলার চেষ্টা করা এবং বাড়তি ওজন কমিয়ে ফেলতে অনুপ্রাণিত করা। আমরা বিশ্বাস করি একজন মানুষকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা মানে এর পাশাপাশি তার পরিবারকেও স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা। এভাবে আমরা একদিন দেশের সব পরিবারে সুস্বাস্থ্যের বার্তা পৌঁছে দিতে পারব।

Leave a comment

Leave a Comment

0 Shares
Tweet
Share
Share
Pin