সপ্তাহে কমপক্ষে ৩-৫ দিন ১ ঘন্টা হাটুন/দৌড়ান, প্রতিদিন কমপক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

প্রতিদিন কিছু সময় ওয়ার্ক আউট করুন। নিয়মিত ঘুমান। পরিমিতি খাবার খান। পজিটিভ চিন্তা আর কথা বলুন আর পজিটিভ মানুষের সাথে চলুন। আজীবন ভালো থাকবেন

Last Updated on June 19, 2017 by Motu Group Team

সব মুশকিল আসান পোস্ট!!
পুরো পোস্ট পড়ুন, কমেন্টে বেশ কিছু পোস্টের লিংক আছে। ওইগুলো পড়ুন আর ওই পোস্টের কমেন্টগুলোও পড়ুন।

বিএমআই জানলেন??
ওয়েট মাপলেন??
ক্যালরি হিসাব করলেন??
কোন খাবার কত ক্যালরি। প্রচুর হিসাব কিতাব!!
আবার ওয়ার্ক আউট!! এতে কত ক্যালরি যাবে সেই হিসাব কিতাব!!
সব মিলিয়ে সারাদিনে কত ক্যালরি গেলো আর কত ক্যালরি আসলো সেই যোগ বিয়োগ।
এইভাবে প্রতিদিন!!
মাঝখানে একটা দুর্ঘটনা ঘটেছে। পুরাই আন্দাজে নিজেকে একটা টার্গেট দিয়েছেন। কোনো স্পেশালিষ্ট এর কথা শুনে না। নিজে থেকেই। যা আছে কপালে। কাল থেকে শুকাই যাবো।
একদম সবকিছু বাদ দিলেও আমরা সারাদিন অনেক ব্যস্ত থাকি।তার মাঝে হিসাব কিতাব করবেন কতক্ষন? খাবেন কখন? ওয়ার্ক আউট করবেন কখন আবার হিসাব করবেন কখন?
ভিতর ভিতর টার্গেট আপনাকে খুনের আসামীর মত তাড়া করছে পুলিশ হয়ে।
আরো আছে। এক মাস পর ভাইয়ের বিয়েতে পারফেক্ট সালোয়ার কামিজটা না পরতে পারলে জীবনটাই বৃথা। সব ছবিতে মোটা লাগবে।
আবার মটু গ্রুপে ওনারা সব তুফানের বেগে শুকাইয়া কাঠ হইয়া যাইতেসে। দুই সপ্তা গেলো। তেমন কিসুই হলোনা। ধুর পারুমনা এত্তো কিসু করতে।
এটা একটা জেনারেল সিনারিও অধিকাংশ মেম্বারদের যারা বিভিন্ন স্ট্যাটিস্টিকস মেইন্টেইন করেন আর অধিকাংশই বেশিদিন ধরে রাখতে পারেননা। খুব কম মানুষ আছে যারা পারেন। কিন্তু তাদেরো অনেকে বিপদে পরেন। টার্গেট ফিলাপ করার পর কি করবেন খুজে পাননা।
এইসমস্ত ইনফরমেশন মেইন্টেইন করা সময় সাপেক্ষ। এগুলো স্ট্রেস ক্রিয়েট করে। মনের মাঝে দ্রুত ওয়েট কমার একটা ভুল এক্সপেকটেশন ক্রিয়েট করে। খুব দ্রুত রেজাল্ট না পেলে, পুরোই ডিমোটিভেট হতে হয়।
আবারো বলছি ব্যাপারটা সিম্পল, হিসাব কিতাব অফ করতে পারেন চাইলে। পরের সাথে কম্পেয়ার করা অফ করেন। প্রতিদিন কিছু সময় ওয়ার্ক আউট করুন। নিয়মিত ঘুমান। পরিমিতি খাবার খান অন টাইম। পজিটিভ চিন্তা আর কথা বলুন আর পজিটিভ মানুষের সাথে চলুন। আজীবন ভালো থাকবেন।
Good lifestyle is way more important than our weight. If we follow a good lifestyle, perfect weight will follow us!!!

আমাদের উদ্দেশ্য টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে সঠিক তথ্য দিয়ে সবাইকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলার চেষ্টা করা এবং বাড়তি ওজন কমিয়ে ফেলতে অনুপ্রাণিত করা। আমরা বিশ্বাস করি একজন মানুষকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা মানে এর পাশাপাশি তার পরিবারকেও স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা। এভাবে আমরা একদিন দেশের সব পরিবারে সুস্বাস্থ্যের বার্তা পৌঁছে দিতে পারব।

Leave a comment

0 Shares
Tweet
Share
Share
Pin