সপ্তাহে কমপক্ষে ৩-৫ দিন ১ ঘন্টা হাটুন/দৌড়ান, প্রতিদিন কমপক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

থাইরয়েড ডায়েট চার্ট

Last Updated on March 8, 2021 by Motu Group Team

সময়কালঃ ৩ মাস

সকালে ঘুম থেকে উঠেই খালি পেটে ১ গ্লাস কুসুম কোমল গরম পানিতে ১ চায়ের চামুচ ফ্যাক্সসিড পাওডার + ১ চায়ের চামুচ দারুচিনি পাওডার গুলিয়ে খাবেন। এরপর ৩০- ৪৫ মিনিট হাটাহাটি/দৌড়ানো/বা অন্য কোন এক্সারসাইজ করে নিবেন।এরপর এসে সকালের ব্রেকফাস্ট সেরে নিবেন।

সকাল (৮):

৫-৬ চায়ের চামুচ ওটস খিচুরি + হাপ কাপ সবজি + ১ টি ডিম সেদ্ধ (কুসুমসহ ৫ দিন বাকি ২ দিন কুসুম ছাড়া) + গ্রীন টি

মধ্য সকাল (১১):

১ টা ছোট কলা/কমলা/সবুজ আপেল + ৫ টা ওয়ালনাট(আখ্রোট)

দুপুরঃ(২):

১ কাপ ভাত//২ টা রুটি + ১ টুকরো ছোট মাছ/ ২ টুকরো চর্বিছাড়া মাংস(চিকেন) + ১ কাপ সবুজ শাকশব্জি + কাঁচা সালাদ (শশা+টোমেটো) + গ্রীন টি

{ দুপুর (২) টার খাবারের ২ ঘন্টা পর ১ ঘণ্টা হাটবেন বা দৌড়াবেন বা কার্ডিও করবেন। বা অন্য কোন এক্সারসাইজ করবেন। এরপর এসে বিকেল (৫) টার মিল খাবেন।** }

বিকেলঃ(৫):

১ গ্লাস স্মুদি( টক দই ৫ চায়ের চামুচ + ১ টা সবুজ আপেল/কমলা) + ১ টি ডিম সেদ্ধ( কুসুম ছাড়া) + ৮ টি কাট বাদাম(আমন্ড)/১ চায়ের চামুচ পিনাট বাটার

রাত(৮):

২ টুকরো মাছ/ ৪ টুকরো চর্বিছাড়া মাংস(চিকেন) + ডাল (হাপ কাপ) + ১ কাপ সবুজ সবজি।

পরামর্শঃ (যা অবশ্যই মেনে চলবেন)

  • ১ গ্লাস পানিতে ১ চায়ের চামুচ আপেল সিডার ভিনেগার(ACV) দুপুর(২) খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে খাবেন। (স্ট্র দিয়ে খাবেন)
  • ভাত খেলে লাল চালের ভাত খেতে হবে। ভাতের পরিমান ১ কাপ = (১২০ মিলি) ।
  • লাল আটার রুটি খেতে হবে। =>কি কি খাওয়া যাবে আর কি কি খাওয়া যাবেনা এই ২ টা পার্ট ভালো করে পরে ফেলুন।
  • অলিভ অয়েল খাবেন। সবজি ওলিভ অয়েল দিয়ে রান্না করবেন।
  • ১ গ্লাস ২৫০ মিলি হিসেব করবেন। => ৩-৪ লিটার পানি খাবেন।(প্রতিটা মিলের ৩০ মিনিট আগে ২ গ্লাস করে পানি খাবেন)
  • ১৪ দিন পর ওজন মাপাবেন। বারবার বা ২ দিন পরপর মাপাবেন না। (ওজন মেপে জানাবেন)
  • ডায়েট শুরু করার আগে ওজন মেপে তারপর শুরু করবেন।
  • রেগুলার ৬-৯ ঘণ্টা ঘুমাবেন। টানা ৬-৯ ঘন্টা ঘুমানোর চেষ্টা করবেন।
  • (সকাল + সন্ধ্যা) দুবেলা হাটবেন/দৌড়াবেন/সাইকেল/সাঁতার এইসব করবেন। কার্ডিও + ওয়েট লিফটিংও করা যাবে। এক্সারসাইজ বা ওয়ার্কাউট ছাড়া হাইপোথাইরয়েড রুগীদের ওজন কমানো একটু কস্টসাধ্য। তাই নিয়মিত আপনাকে এক্সারসাইজ করে যেতেই হবে। চার্টের মধ্যে যেভাবে বলেছি সেভাবে হাটবেন।
  • দুপুর এবং রাতে ভারী খাবার খাওয়ার ১০-১৫ মিনিট পর ১৫-২০ মিনিট স্বাভাবিক গতিতে হাটবেন।


সর্বপরি একটা কথা না বললেই নয়। সেটা হলো এইখানে থাইরডের সব বেসিক ব্যাপারগুলো নিয়েই লিখা হয়েছে। কারণ বা লক্ষন দেখে চিন্তা করার কোন কারণ নেই। যদি খুব বেশি চিন্তিত থাকেন তবে কোন এন্ড্রোক্রিনোলজিস্ট দেখিয়ে নিবেন। মেডিসিন + ডায়েট + এক্সারসাইজ করলে এই রোগ তেমন কোন সমস্যা হয়না। কারো কোন বিষয়ে জানতে চাইলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। চেষ্টা করবো জানাতে।

যারা অলরেডি থায়রয়েড চার্ট পেয়ে গেছেন তারা এই চার্ট ফলো করবেন না। যারা আমাকে ইনবক্স করে পায়নি তারাই ফলো করবেন। ফলো করার ১৪ দিন পর ওজন কমে আর যদি সুস্থ থাকেন তবেই চার্ট ৩ মাস পর্জন্ত চালিয়ে যাবেন। চাইলে চার্ট কপি করে ডাক্তারের সাথে কথা বলে নিতে পারেন। যদি থাইরডের সাথে ডায়বেটিক থাকে তাহলে চার্টের সাথে মেডিসিন ডোজ মিলিয়ে নিবেন। ৭ দিন পর ব্লাড সুগার টেস্ট করলেই বুঝতে পারবেন।

BeFit, BeYou, BeSmart, Behappy

There Is Nothing Impossible To Him Who Will Try.

Leave a comment

Leave a Comment

0 Shares
Tweet
Share
Share
Pin