সপ্তাহে কমপক্ষে ৩-৫ দিন ১ ঘন্টা হাটুন/দৌড়ান, প্রতিদিন কমপক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

এক্সারসাইজ করার সঠিক সময়

Last Updated on April 29, 2021 by Motu Group Team

#এক্সারসাইজ_করার_সঠিক_সময়#

এক্সারসাইজ বা ব্যায়াম করবো, কিন্তু কখন করবো? কতক্ষণ করবো?

আমরা অনেক সময় বুঝে উঠতে পারিনা, ব্যায়ামের জন্য কোন সময় সব চেয়ে ভালো? সকাল বেলা? খালি পেটে? ভরা পেটে? দিনের বেলা? বিকেল বেলা? নাকি রাত? এবং সর্বোনিম্ন বা সর্বোচ্চ কতক্ষণ এক্সারসাইজ করতে হবে?

#উত্তর- এক্সারসাইজ করবেন আপনার সুবিধা মত, যেকোন সময়। আপনার জীবনধারা এবং সময়সূচী নির্ধারণ করবে আপনার জন্য উপযুক্ত সময় কোনটি, প্রত্যেকের কাজের ধরণ, জীবনযাত্রা অনুযায়ী স্বতন্ত্র সুবিধা আছে। সেই সুবিধা মতো ব্যায়াম করবেন।

ব্যায়ামের জন্য সর্বোনিম্ন সময় ৩০-৪৫ মিনিট। কারন এর নীচে ব্যায়াম করলে আপনার ফ্যাট সেল সেভাবে ভাঙা শুরু হবে না। ৩০ মিনিটের প যত সময় বেশি ব্যায়াম করবেন ততো বেশি ফ্যাট বার্ন হবে। তবে সাধারণত ১.৫ ঘন্টা ভারী ব্যায়াম রেকমেন্ড করা হয়, সপ্তাহে ৫-৬ দিন। এর চেয়ে বেশিও করা যায়, তবে সেটা অবশ্যই এক্সপার্ট ট্রেইনার/ডাক্তার/নিউট্রিশনিস্ট এর পরামর্শে, যেটা স্পেশাল মানুষদের জন্য প্রযোজ্য যেমন বডি বিল্ডার, এথলেট ইত্যাদি।

একটা কথা অবশ্যই মনে রাখতে হবে, ভারী খাবার খাওয়ার ২ ঘন্টার পর এবং রাতে ঘুমানোর ২ ঘন্টা আগে ব্যায়াম সেরে ফেলতে হবে। তবে খালি পেটে ব্যায়াম করলে ভাল ফল পাওয়া যায়।

#ছাত্র/ছাত্রী – আপনার একেকটি দিন একেক রকম ব্যস্ততায় পার হয়ে যায়। এখন থেকে ওখানে যাওয়া আসা, একাডেমিক এবং সামাজিক জীবন সবখানে তাল মেলানোর চেষ্টার মধ্যে সকালটা কাটে খুব তাড়াহুড়ায়। তাই সকালে ব্যায়ামের জন্য সময় বের করতে হলে শেষমেশ আর করাই হবে না। অতএব ব্যায়ামের জন্য বিকাল/সন্ধ্যা আপনার আদর্শ সময়। এতে আপনি একটি দীর্ঘ দিনের শেষেও সময় করে নিয়মিত ব্যায়াম করতে পারবেন, যা আপনাকে সঠিক ওজন ও স্ট্রেস রিলিফেও সাহায্য করবে। শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তি দেবে।

টিনএজ বা বালক/বালিকারা আউটডোর খেলাধুলার মাধ্যমে ব্যায়ামের কাজ টা সেরে ফেলতে পারেন।

#কর্পোরেট- সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্যায়ামের কাজটা সেরে ফেলতে পারেন। ঝরঝরা শরীরে গোসল সেরে অফিসে গেলে আপনার দিন টা ভাল কাটবে। অথবা বিকাল/সন্ধ্যা, অফিস ছুটির পর ও হতে পারে আপনার ব্যায়ামের সঠিক সময়। একজন বন্ধু খুঁজে নিন যে আপনাকে বিকাল বেলা অফিস শেষে সঙ্গ দিবে, জিম হোক বা হাঁটার জন্য।

#গৃহিনী- ব্যায়াম মনকে শান্ত করে, সঠিক ওজন বজায় রাখতে হেল্প করে, তাই এর মাধ্যমেই কি দিনটি শুরু করা ভালো। সকাল বেলা ব্যায়াম দিয়ে দিন শুরু করে কাজে নেমে পড়ুন। এটি সারাদিনে আপনাকে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে সাহায্য করবে। রাতে সময়মত বিছানায় চলে যান, পর্যাপ্ত ঘুম আপনাকে সকালের ব্যায়ামের জন্য ফ্রেশ রাখবে। যদি সম্ভব না হয় তবে দিনের অন্য যেকোন সময়, নিজের সুবিধা মতো এক্সারসাইজ করতে পারেন।

#বয়স্ক/বয়স্কা-সকালের ফ্রেশ বাতাসে বা বিকেলের নরম আলোয় বাগান/পার্কে হাঁটার মাধ্যমে সেরে ফেলতে পারেন দৈনন্দিন ব্যায়ামের কাজ।

#দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থ মানুষ – ডায়াবেটিস, হাঁপানি, বাত ইত্যাদি দীর্ঘস্থায়ী রোগ থাকা মানে এই না যে আপনি ব্যায়াম করতে পারবেন না। কিন্তু আপনার ওষুধ খাওয়া আপনার ব্যায়ামের পরিমাণ এবং সময়সূচিকে প্রভাবিত করবে। এবং তার জন্য অবশ্যই আপনাকে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

সুতরাং একটি ব্যায়াম রুটিন সেট করে নিন। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ কারো পরামর্শ নিন। যদি আপনার মনে হয় যে আপনার ব্যায়ামের বর্তমান সময় আপনাকে সুট করছে না, তাহলে তা পরিবর্তন করে দেখতে পারেন। মনে রাখবেন, সারাদিনে একটু খানি ব্যায়াম আপনাকে সারা জীবন সুস্থ রাখবে।

#টিম_মোটু_গ্রুপ#

Leave a comment

Leave a Comment

0 Shares
Tweet
Share
Share
Pin