সপ্তাহে কমপক্ষে ৩-৫ দিন ১ ঘন্টা হাটুন/দৌড়ান, প্রতিদিন কমপক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

Tanjima Haque

Last Updated on June 30, 2017 by Motu Group Team

#ডায়েট_নিয়ে_যতকথা
আজকালকার খুব আলোচিত সমস্যা হল মোটা হয়ে যাওয়া।আমি নিজেও এই সমস্যার ভুক্তভোগী,৫৫কেজি থেকে হঠাৎ করে ৭৩কেজি হয়ে যাওয়া, মানুষের কটু কথা,বন্ধু-বান্ধবী দের খোঁটা,কাছের মানুষদের অনেক কথাই শুনেছি,খুব ভেঙে পড়েছিলাম,একটা সময় তো মনে হত মরে যাওয়াই ভাল।ডিপ্রেশন, ফ্রাস্টেশন একেবারে যাচ্ছে তাই,ছবি তুলতে ভয় পেতাম,আম্মা লাগতেসে তোরে,খালাম্মা লাগে,আন্টি লাগে,কত খাসরে,কোন গুদামের চাল খাস,খোদার খাসি 🙁 :'(
কম কম খাওয়া শুরু করলাম,কিন্তু তাতে দূর্বল হওয়া ছাড়া আর কিছুই পেলাম না।

আস্তে আস্তে youtube ঘাটা শুরু করলাম,ফেইসবুকের বিভিন্ন ধরনের ওয়েট লস গ্রুপে অ্যাড হলাম।আস্তে আস্তে শুরু করলাম নিজেকে নিয়ে ভাবা,কিভাবে কি শুরু করা যায়।নিজে নিজেই মোটামোটি একটা ডায়েট প্লান বানালাম,হাটার সময় পাইনা তাই youtube থেকে সহজ সহজ এক্সারসাইজ বের করলাম,তারপর শুরু করলাম নিজের পথ চলা,অনেকটা সময় নিয়ে(প্রায় ৮মাস) ৭২থেকে ৫৯কেজিতে পৌছাতে পেরেছি আল্লাহ্‌র রহমতে।
নিচে প্লানটা দিচ্ছি কিভাবে কি করতাম।আমার মনে হয় সবাই এটা মোটামোটি করতে পারবে,কারণ কোন hard diet করিনাই,কোন artificial কিছু খাইনি বা ব্যবহার করিনি।শুধু #লাইফ_স্টাইল টা পরিবর্তন করেছি,কিছু অভ্যাস বদলেছি।

১।সবার আগে fast food খাওয়াটা কমাতে হবে,একেবারে বন্ধ করতে বলছিনা,শুধু কমান,আগে ৩,৪পিস চিকেন ফ্রাই খেতেন,এখন থেকে ১,২পিস খান,খেয়ে ড্রিংকস খেতেন ঢক ঢক করে,এখন ব্যাগে পানি রাখেন,খেয়ে পানি খান অনেক খানি,তারপরো খেতে মন চাইলে ১,২চুমুক খেতেই পারেন।এভাবেই শুরু করুন
২।মিস্টির অভ্যাস থাকলে কষ্ট হবে কিছুটা,কিন্তু হতাশ হওয়ার কিছু নেই,আগে ৪চামচ চিনি দিয়ে চা খেতেন,এখন ২ চামচ খান,ঘন দুধ দিয়ে চা ২,৩বার না খেয়ে একবার খান,আস্তে আস্তে অভ্যাস টা বাদ দেওয়ার চেস্টা করবেন।গ্রিন টি খাওয়ার চেস্টা করেন।অনেক বাজে স্বাদ জানি,একটু মধু,আদা,লেবু যোগ করলে এত খারাপও লাগবেনা 🙂
৩। সকালে খালি পেটে কুশুম গরম পানিতে মধু, লেবু মিক্স করে পান করতে পারেন,যদি গাস্ট্রিক বা এ্যসিডিটি না থাকে।থাকলে খালি পেটে সাধারণ পানি পান করেন।আধা ঘন্টা পর নাস্তা করুন।৭-৮.৩০এর মধ্যে করলে ভাল।হাতে বানান রুটি,তেল ছাড়া পরাটা,সবজি,ভাজি,ডাল,একটা ডিম খেতেই পারেন।
৪।১০.৩০-১১.৩০ এর মধ্যে একটা আপেল,টোস্ট,এক কাপ গ্রিন টি।
৫।১.৩০-২টার মধ্যে দুপুরের খাবার- খাবার ১৫,২০মিনিট আগে এক গ্লাস পানি খান।
সব সময় যে পরিমান ভাত খান,তার থেকে আজ নাহয় ৪,৫লোকমা কম খান ভাত টা,খুব বেশি মনে হয় ক্ষতি হবেনা,সব্জির পরিমাণ টা বাড়ান,অনেক ডাল খান,অবশ্যই পাতলা ডাল,৪,৫পিস মাংস, মাছ না,১,২পিস খান।
আমি এক কাপ ভাত,অনেক ডাল আর সবজি খেয়েছি,তাই ভাতের চাহিদা আর থাকত না।
৬।৪-৫টার সময় মুড়ি,টোস্ট,অন্য মিস্টি কম,ক্রিম ছাড়া বিস্কিট খেতে পারেন,সাথে গ্রিন টি।
৭।৮.৩০-৯টার মধ্যে রাতের খাবার খান,রুটি খান,সবজি খান,ওটস খান দুধের সাথে বা সবজি দিয়ে খিচুড়ি বানিয়ে, যেইটা ভাল লাগে আর কি।রাতের খাবার ঘুমানোর মিনিমাম ২ঘন্টা আগে খাবেন।
৮।রাতের খাবারের ১ঘন্টা পর হাল্কা নাচানাচি 😉 ,ব্যায়াম, হাটাহাটি করেন।
আমি youtube থেকে বিপাশা বসুর ৩০মিনিট এর এ্যারোবিক্স আর ৪-৫ মিনিট জুম্বা করতাম,খুবই মজা লাগত 😂।তারপর ক্ষুধা লাগলে,কফি(দুধ,চিনি ছাড়া) বা এক কাপ দুধ বা ঠান্ডা পানিতে শেইপ আপ মিল্ক পাউডার মিক্স করে খেয়ে ঘুমিয়ে পরতাম।

কিছু কথা:
এটা কোন hard diet না,তাই ডিম নাকি খাওয়া যাবেনা,ভাত খাওয়া যাবেনা ইত্যাদি ইত্যাদি না ভাবাই ভাল।এটা শুধু অভ্যাসের পরিবর্তন করা। বাকিটা আস্তে আস্তে নিজেই বুঝে যাবেন কি করা,কি খাওয়া ঠিক আর কি ঠিক না।
দিনের বেশিরভাগ সময় যারা বাইরে থাকেন তারা অবশ্যই ব্যাগে পানি,বিস্কিট বা যে কোন খাবার সাথে রাখবেন।তাই বলে বার্গার,স্যান্ডউইচ,চিপস,চকলেট না।ফল যেমন:পেয়ারা,আপেল,কমলা,শশা,এগুল নিতে পারেন,অনেক পানি খাবেন।আরেকটা কথা,অনেকেই রুটির বদলে পাউরুটি খান,এটা আসলে ঠিক না,পাউরুটিতে ঈস্ট থাকে,যেটা পাউরুটি টাকে নরম করে আর ফুলতে সাহায্য করে,তাই এটা না খাওয়াই ভাল।
রান্নায় যদি তেল কমান যায়,কমাবেন,কারন নিজের জন্য পরিবারের অন্য সদস্যদের তো আর কস্ট দেওয়া যায় না 😉 ।
অনেক পানি খান,হাটুন,না পারলে বাসায় কিছু এক্সারসাইজ করুন,না পারলে গান ছেড়ে পুরা শরীর নাড়ান,নাচুন,কাছের রাস্তার দুরত্বে রিক্সার জন্য অপেক্ষা না করে হাটুন।

জানিনা কতটুকু কি হবে,কিন্তু একটাই অনুরোধ,হায় হুতাশ করে কোন লাভ হবেনা,আজ না কাল থেকে বলেও লাভ হবেনা,তাই বলব আজকের রাতের খাবার টা দিয়েই নাহয় শুরু করুন। ☺পরিবর্তন আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। 😍

১ম ছবি মনে হয় ১.৫বছর আগের ৭৩কেজি,২য় টা এই বছর ১লা ফাল্গুন ৬২কেজি 😜। যদিও একটু বেড়েছি আবার অনিয়মের জন্য। 😫😭
হয়ত খুব বেশি পরিবর্তন না কিন্তু,নিজের কাছে নিজেকে ভাল লাগে,আত্নবিশ্বাস বেড়েছে।ক্যামেরার সামনে লজ্জা লাগেনা 😍
ধন্যবাদ তাদের যারা প্রতিনিয়ত খোটা দিয়ে,লজ্জা দিয়ে আমার জেদ বাড়িয়ে আমাকে আজকের এমন অবস্থানে আসতে সাহায্য করেছে।।। :* :*

এত বড় পোস্টের জন্য দুঃখিত।
সবার জন্য শুভ কামনা রইল।

আমাদের উদ্দেশ্য টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে সঠিক তথ্য দিয়ে সবাইকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলার চেষ্টা করা এবং বাড়তি ওজন কমিয়ে ফেলতে অনুপ্রাণিত করা। আমরা বিশ্বাস করি একজন মানুষকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা মানে এর পাশাপাশি তার পরিবারকেও স্বাস্থ্য সচেতন করে তোলা। এভাবে আমরা একদিন দেশের সব পরিবারে সুস্বাস্থ্যের বার্তা পৌঁছে দিতে পারব।

Leave a comment

Leave a Comment

0 Shares
Tweet
Share
Share
Pin